খাদ্য-পুষ্টি ও জীবনযাত্রা

সঠিকভাবে পানি বিশুদ্ধ করবেন কীভাবে? 

এই গরমে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে ডায়রিয়াসহ অন্যান্য পানিবাহিত নানান মারাত্মক রোগ। তাই এগুলো প্রতিরোধ করতে সঠিক নিয়মে পানি বিশুদ্ধ করে খাওয়াটা জরুরি।

পানি বিশুদ্ধিকরণের কিছু পদ্ধতি যা আপনি ব্যবহার করতে পারেন:

১. পানি ফুটানো:

ফুটানো হলো পানি বিশুদ্ধিকরণের সবচেয়ে নিরাপদ উপায়। এই পদ্ধতিতে একটি পাত্রে পরিষ্কার পানিকে ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ফুটাতে হবে এবং ফুটন্ত অবস্থায় ২-৩ মিনিট রেখে দিতে হবে। ফুটানো হয়ে গেলে পানি ঠান্ডা করে পরিষ্কার পাত্রে ঢেকে রেখে দিতে হবে।

যারা বেশি উঁচু জায়গায় থাকেন, তাদের উচিত নিচু জায়গায় বসবাসকারীদের চাইতে বেশি সময় ধরে পানি ফোটানো। কারণ উচ্চতায় কম তাপমাত্রাতেই পানি ফুটতে আরম্ভ করে।

২. ফিল্টার বা ছাকন:

ছাকন প্রক্রিয়া পানি বিশুদ্ধিকরণের একটা কার্যকরী উপায় এবং যথাযথ উপকরণ ব্যবহার করতে পারলে পানিকে সব ধরনের দূষিত পদার্থ থেকেই মুক্ত করা যায়। 


রাসায়নিক এবং ভৌতিক উভয় প্রক্রিয়াতেই পানি ফিল্টার করা যায়। ফিল্টার করলে পানির সকল খনিজ লবণ দূরীভূত হয় না, তাই এটি পানি বিশুদ্ধিকরণের অন্যান্য

পদ্ধতির চাইতে বেশি স্বাস্থ্যকর। ছাকন প্রক্রিয়ায় খরচও কম এবং এছাড়া এটি করার সময় পানির অপচয়ও হয় না তেমন। বাজারে বিভিন্ন আকৃতির এবং ধরনের ফিল্টার কিনতে পাওয়া যায়।

৩. ডিস্টিলেশন বা পাতন:

এই পদ্ধতিতে তাপ প্রয়োগ করে পানিকে বাষ্পে পরিণত করা হয়, এবং বাষ্প হিসাবেই বিশুদ্ধ পানি সংগৃহীত হয়। পরে ঠান্ডা করলে পানি পাওয়া যায়।

তবে এটি খুব ধীর প্রক্রিয়া এবং ব্যয়বহুল। যে সমস্ত ক্ষেত্রে একেবারে অপরিশোধিত পানি ছাড়া আর কোনো উৎস থাকে না তাদের জন্য এই পদ্ধতি উপযোগী।

পাতনের জন্য আলাদা যন্ত্রপাতি পাওয়া যায়। ঘরে করতে চাইলে একটা বড়ো পাত্রে পানি দিয়ে তার ভিতরে ছোটো একটা পাত্র দিতে হবে, এবং ঢাকনিটা

উলটো করে বড়ো পাত্রটায় বসিয়ে দিতে হবে। বাষ্পীভূত পানি ঢাকনিতে লেগে তরল হয়ে ছোটো পাত্রে জমা হবে।

৪. ক্লোরিনেশন:

ক্লোরিন একটি শক্তিশালী রাসায়নিক পদার্থ এবং দীর্ঘদিন ধরেই ঘরের পানি বিশুদ্ধ করতে এটি ব্যবহার হয়ে আসছে। ক্লোরিন দিয়ে সহজেই জীবাণু, পরজীবী

এবং অন্যান্য অণুজীবকে মারা যায়। ক্লোরিন ট্যাবলেট বা তরল ক্লোরিন দিয়ে পানি বিশুদ্ধ করা যায়। এটি সস্তা এবং কার্যকর। তবে এক্ষেত্রে কিছুটা সতর্ক থাকা

জরুরি। যাদের থাইরয়েডের সমস্যা আছে তাদেরকে ক্লোরিন ব্যবহারের ব্যাপারে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। ক্লোরিন ট্যাবলেট ব্যবহার করলে সেটি

উষ্ণ পানিতে দিতে হয়, কারণ ক্লোরিন ট্যাবলেট পানিতে দ্রবীভূত হয় ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

পানি বিশুদ্ধ করে পান করতে পারলেই আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অনেকগুলো রোগের হাত থেকে নিস্তার পেতে পারব। তাই নিজের সুবিধামতো

যেকোনো একটি পদ্ধতিতে পানি বিশুদ্ধ করে নিয়ে পান করাটা জরুরি।

তথ্যসূত্র:

4 Methods to Purify Your Water | Sauk Rapids, MN | Schultz Soft Water

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

সম্পর্কিত পোস্ট

আরও আরও...আর পাওয়া যায়নি.