শিশুর যত্ন ও বেড়ে উঠা

শিশুদের নিউমোনিয়া প্রতিরোধ করার উপায়

নিউমোনিয়াতে বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় ২৫ হাজার শিশু মারা যায়। এছাড়াও সারা বিশ্বে ৫ মাসের কম বয়সি ১৬ ভাগ শিশু মৃত্যু হয় নিউমোনিয়ার কারণে।

অর্থাৎ পৃথিবীতে প্রায় প্রতি ৩৫ সেকেন্ডে একটি শিশু নিউমোনিয়াতে মারা যায়। তবে, সঠিক পদক্ষেপ নিলে এই মৃত্যুগুলো প্রতিরোধ করা সম্ভব।

নিউমোনিয়া মোকাবেলায় জেনে নিতে হবে এটি  কীভাবে ছড়ায়:

  • বাচ্চাদের নাকে যেসব জীবাণু থাকে সেগুলোও ফুসফুসে নেমে গিয়ে প্রদাহ তৈরি করতে পারে,
  • আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি কাশি থেকে বের হওয়া শ্লেষ্মা থেকে,
  • জন্মের পরপর রক্ত থেকেও ছড়াতে পারে।

নিউমোনিয়া থেকে শিশুকে রক্ষা করার সবথেকে কার্যকরী উপায় হলো শিশুকে নিউমোনিয়ার টিকা দেওয়া। বাংলাদশে জাতীয় টিকাদান কর্মসূচির

আওতায় শিশুদেরকে নিউমোনিয়ার টিকা প্রদান করা হয়। এর বাইরে নিউমোভ্যাক্স-২৩ নামের একটি ভ্যাকসিন বাজারে পাওয়া যায়।

পাশাপাশি যেসব শিশুর অ্যালার্জির সমস্যা আছে তাদেরকে প্রতি বছরই ফ্লু ভ্যাকসিন দেওয়া নিউমোনিয়া প্রতিরোধ করার ভালো উপায়। 

এগুলোর সাথে সাথে শিশুর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য যথাযথ পুষ্টি নিশ্চিত করা, বুকের দুধ পান করানো এবং প্রচুর শক্তি সমৃদ্ধ বাড়তি খাবার দেওয়া প্রয়োজন।

অভিভাবকদেরকে অবশ্যই শিশুকে পরিচ্ছন্ন থাকার উপায়গুলো শেখাতে হবে এবং নিজেদেরকেও তা পালন করতে হবে। ছোটো থেকেই শিশুকে শেখাতে হবে যে

হাঁচি এলে টিস্যু বা জামার হাতা দিয়ে নাক আড়াল করে ধরে হাঁচি দিতে হবে, ব্যবহার শেষে টিস্যুটাকে ফেলে দিতে হবে এবং নিয়মিত হাত ধুতে হবে।

বড়োদেরকেও যেকোনো ছোটো শিশুকে ধরার আগেই ভালোমতো হাত ধুতে হবে।

শিশুরা যেসব জিনিস বেশি ধরে যেমন খেলনা, টেবিল ইত্যাদি সাবান এবং পানি দিয়ে নিয়মিত মুছে জীবাণুমুক্ত রাখতে হবে। এর পাশাপাশি বাসায় যেন

কেউ ধূমপান না করে এবং কোনো কিছু থেকে বেশি ধোঁয়া উৎপন্ন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা।

প্রতিকারের চাইতে প্রতিরোধ সবসময়ই উত্তম। নিউমোনিয়ার মতো মারাত্মক কিন্তু এত সহজেই প্রতিরোধযোগ্য একটি রোগ থেকে বাঁচতে, পর্যাপ্ত সতর্কতার কোনো বিকল্প নেই।

তথ্যসূত্র:

Steps on to Pediatrics: 5th Edition, by Prof. Abid Hossain Mollah and Dr. Nazmun Nahar

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

সম্পর্কিত পোস্ট

আরও আরও...আর পাওয়া যায়নি.